Bengoli English Arabic

জামিয়ার বিভাগসমূহ

প্রাইমারী মক্তব বিভাগ
এ বিভাগে সুযোগ্য উস্তাদবৃন্দের সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধানে আবাসিক ব্যবস্থায় কোমলমতি শিশু কিশোরদের সহীহ শুদ্ধভাবে কুরআন মাজীদ পড়ানো হয়। প্রাথমিক উর্দূ-ফার্সীসহ পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত বাংলা, অংক, ইংরেজী, সমাজ ইত্যাদি শিক্ষা প্রদান করা হয়।

হিফযুল কুরআন বিভাগ
এ বিভাগে অভিজ্ঞ শিক্ষকমণ্ডলী দ্বারা অতি অল্প সময়ে শিশু-কিশোরদের সম্পূর্ণ কুরআন মাজীদ সহীহ-সুদ্ধভাবে মুখস্ত করিয়ে হাফিযে কুরআন বানানো হয়। সাথে সাথে নিত্য প্রয়োজনীয় জরুরী মাসাইলও শিক্ষা প্রদান করা হয়।

কিতাব বিভাগ
এ বিভাগ জামিয়ার পূর্ণাঙ্গ ইসলামী শিক্ষা ব্যবস্থাপনার সমৃদ্ধ প্রধান বিভাগ। এ বিভাগে আরবী প্রথম শ্রেণী হতে সর্বোচ্চ শ্রেণী দাওরায়ে হাদীস (টাইটেল) পর্যন্ত বিশ্ববিখ্যাত বিদ্যাপীঠ দারুল উলূম দেওবন্দের পাঠ্যসূচী অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে কুরআন, হাদীস, ফিক্হ, তাফসীর, আকাঈদ, আরবী সাহিত্য, আরবী ব্যাকরণ, অলঙ্কার শ্বাস্ত্র, মানতিক, তর্কশ্বাস্ত্র, হিকমত, ফালসাফা ইত্যাদি বিষয়ে পারদর্শী করে বিজ্ঞ আলেমরূপে গড়ে তোলা হয়। এ বিভাগে দশম শ্রেণী মানের বাংলা, অংক, ইংরেজী, সমাজ-বিজ্ঞান, পৌরবিজ্ঞান ইত্যাদি বিষয়াবলী শিক্ষা দেয়া হয়।

ফাতওয়া-ফারায়েয বিভাগ
মুসলমানদের দৈনন্দিন জীবনের উদ্ভুত বিভিন্ন সমস্যাবলীর শরীয়ত সম্মত সমাধান দেয়ার জন্য সুযোগ্য ও অভিজ্ঞ মুফতী সাহেবদের তত্ত্বাবধানে এ বিভাগ পরিচালিত হয়। এ বিভাগে দাওরায়ে হাদীস ফারেগ মেধাবী ছাত্রদেরকে প্রশিক্ষণ ও গবেষণার মাধ্যমে সুযোগ্য মুফতী হিসেবে গড়ে তোলা হয়।

তাফসীরুল কুরআন প্রশিক্ষণ কোর্স
পবিত্র রমযান মাসে পরিচালিত সংক্ষিপ্ত এ তাফসীর প্রশিক্ষণ কোর্সে বর্তমান যুগে মানুষের সম্মুখে ইসলামের সর্বজনীন দাওয়াত পেশ করার যোগ্যতা অর্জন, আল-কুরআনের আলোকে জীবন সমস্যার সমাধান পেশ করা এবং কুরআনের বৈপ্লবিক কর্মসূচীসমূহ শিক্ষার্থীদের বিশেষ যত্নসহকারে শিক্ষা দেয়ার সাথে সাথে বিভিন্ন বাতিল মতবাদ সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা দেয়া হয়।

প্রকাশনা বিভাগ
জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ দ্বীনের বহুবিদ খেদমত আনজাম দেয়ার বিভিন্ন কর্মসূচী প্রণয়ন করে তা ধীরে ধীরে বাস্তবায়নের পথে অগ্রসর হচ্ছে। এর একটি দিক হল প্রকাশনা বিভাগ। এ বিভাগ হতে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বিষয়ে বই পুস্তক মাসিক পত্রিকা, সাময়ীকি প্রকাশ হয়ে থাকে।
জামিয়ার প্রকাশনা বিভাগ হতে বিভিন্ন সময় বেশ কয়েকটি ধর্মীয় পুস্তক প্রকাশিত হয়েছে। নিম্নে কয়েকটি বইয়ের সংক্ষিপ্ত বিবরণ পেশ করা হল।
বইয়ের নাম প্রকাশক
(১) ফেদায়ে মিল্লাত জামিয়া
(২) বিষয় ভিত্তিক কুরআন ও হাদীস জামিয়া
(৩) ইসলামে নারী জামিয়া
(৪) কওমী মাদরাসা ইতিহাস ঐতিহ্য অবদান জামিয়া
(৪) ইসলামে অর্থনীতি জামিয়া

ছাত্র পাঠাগার
জামিয়ার শিক্ষা ক্রমে নির্ধারিত কিতাবসমূহ অধ্যায়নের সাথে সাথে শিক্ষার্থীরা যাতে বহুমুখী জ্ঞান আহরনের সুযোগ লাভ করতে পারে সে উদ্দেশে অত্র জামিয়ায় বিভিন্নমুখী জ্ঞান-বিজ্ঞান সম্বিলত বই-পুস্তক ও পত্র-পত্রিকা সমৃদ্ধ একটি ছাত্র পাঠাগার রয়েছে। এখান থেকে ছাত্ররা নিজ নিজ প্রয়োজন ও পছন্দ মত বই-পুস্তক সংগ্রহ করে অধ্যায়ন করে।

মাসিক দেয়ালিকা
অপসংস্কৃতির মুকাবিলায় শিক্ষার্থীদেররকে নিয়মতান্ত্রিক লেখা-পড়ার সাথে সাথে রুচিশীল সাহিত্য চর্চার জন্য প্রতি মাসে ছাত্রদের উদ্যোগে “ইনকিলাব” নামে একটি বাংলা দেয়ালিকা “আলফালাহ” নামে আরো একটি আরবী দেয়ালিকা বের করা হয়। শিক্ষার্থীরা অত্যান্ত উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে এর মাধ্যমে স্বরিচত প্রবন্ধ, কবিতা ইত্যাদি প্রকাশ করে থাকে।

বক্তৃতা প্রশিক্ষণ মজলিস
কুরআন-হাদীসের জ্ঞান অর্জনের পর সর্ব সাধারণের মাঝে দ্বীনি দাওয়াতের ব্যাপক প্রসারের যোগ্যতা অর্জনের জন্য ছাত্রদের বাকশক্তি প্রস্ফুটিত করার লক্ষ্যে জামিয়ায় সাপ্তাহিক বক্তৃতা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে। এর ফলে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা সমাপন করে সমাজে যে কোন বিষয় সুন্দর সাবলীল ও প্রাঞ্জল ভাষায় ব্যক্ত করতে পারে।

কম্পিউটার প্রশিক্ষণ
জামিয়া তার বহুমুখী খেদমতের পাশাপাশি ছাত্রদেরকে আধুনিক ও যোগপোযোগী শিক্ষায় শিক্ষিত করার উদ্দেশে বিশেষ কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কোর্স চালু করেছে। একজন দক্ষ ও অভিজ্ঞ প্রশিক্ষকের মাধ্যমে আগ্রহী ও উদ্যোমী ছাত্রদেরকে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

শিক্ষাবর্ষ, পরীক্ষা ও ছুটি
জামিয়ার শিক্ষাবর্ষ প্রতি বছর শাওয়াল মাস হতে রমযান মাস পর্যন্ত। শাওয়াল মাসে ছাত্র ভর্তির মাধ্যমে শিক্ষা কায্যক্রম শুরু হয় এবং পবিত্র রমযানে বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের মাধ্যমে শিক্ষাবর্ষ সমাপ্ত হয়। প্রতি বছর ৮ শাওয়াল হতে ভর্তি শুরু হয় ১৫ শাওয়াল পর্যন্ত ভর্তি কার্যক্রম চালু থাকে। ছাত্রদেরকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে নির্ধারিত নাম্বার প্রাপ্তির মাধ্যমে ভর্তি হয়। এনআমী (ফ্রি খোরাকী প্রাপ্তির নির্ধারিত কোঠা) রাখতে সামর্থ হলে ছাত্রদেরকে লিল্লাহ বোর্ডিং হতে ফ্রি খোরাকী প্রদান করা হয়। ভর্তির যোগ্যতা অনুসারে সুন্নতে নববীর অনুসারী হওয়া অপরিহার্য্য বলে বিবেচিত হয়।
প্রতি শিক্ষাবর্ষে ৩টি পরীক্ষা যথা- প্রথম সাময়িক, দ্বিতীয় সাময়িক ও বার্ষিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।
১ম সাময়িক পরীক্ষা সফর মাসের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হয়, ২য় সাময়িক পরীক্ষা জামাদিউল উলা মাসের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হয় এবং বার্ষিক পরীক্ষা শাবান মাসের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হয়। প্রকাশ থাকে যে, বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া (বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড)-ভুক্ত জামাতসমূহের বার্ষিক পরীক্ষা বোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত হয়। প্রতি পরীক্ষার পর জামিয়ার সকল বিভাগ ৮দিন করে বন্ধ থাকে। এছাড়াও ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা উপলক্ষে জামিয়ার সকল বিভাগ ১০দিন করে বন্ধ থাকে।

জামিয়ার ক্লাশের সময়সূচী
শনিবার হতে বুধবার পর্যন্ত সকাল ৯.০০ ঘটিকা হতে ৪.৩০মিনিট পর্যন্ত ক্লাশ চলে, মাঝে যোহরের নামায ও খানার বিরতী দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার সকাল ৮.০০ ঘটিকা হতে দুপুর ১২.০০ ঘটিকা পর্যন্ত ক্লাশ চলে। অন্যান্য সময়ে ছাত্ররা নিজ নিজ সবক ইয়াদ, তাকরার ও মুতালাআয় নিয়োজিত থাকে। শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি।

জামিয়ার ছাত্র শিক্ষক ও স্টাফের সংখ্যা
জামিয়ায় প্রতি শিক্ষাবর্ষে সকল বিভাগে যাচাই-বাচাইয়ের মাধ্যমে মেধাবী ও মনোযোগী ছাত্রদের ভর্তি করা হয়। জামিয়ার আবাসিক ধারণ ক্ষমতা সাপেক্ষে সকল বিভাগে ১২০০-১২৫০জন ছাত্র ভর্তি করা হয়। ৫০ জন অভিজ্ঞ ও সুযোগ্য উস্তাদ সার্বক্ষণিক তত্ত্ববধানের মাধ্যমে ছাত্রদেরকে শিক্ষা প্রদানের কাজে নিয়োজিত থাকেন। জামিয়ার বিভিন্ন কাজে ১৫জন স্টাফ সার্বক্ষণিক উপস্থিত থেকে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। তন্মধ্যে বাবুর্চি ১০জন, পাহারাদার ২জন, পরিচ্ছন্নতা কর্মী ২জন ও দফতরী ১জন।
জামিয়ার এহতামামী দায়িত্ব পালন করছেন হযরত মাওলানা মোস্তফা আজাদ, নায়েবে মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করছেন হযরত মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া, শিক্ষা সচিবের দায়িত্ব পালন করছেন হযরত মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, শাইখুল হাদীস ও প্রধান মুফতীর দায়িত্ব পালন করছেন হযরত মাওলানা মুফতী তাজুল ইসলাম।